আবার ডুয়ার্সের রেলপথে হাতির মৃত্যু গতি নিয়ন্ত্রনে সোচ্চার পরিবেশ প্রেমীরা। 

দেবজ্যোতি চ্যাটার্জী Jul 01, 2019 - Monday মালবাজার 117



আবার ডুয়ার্সের রেলপথে চলন্ত ট্রেনের ধাক্কায় মারা গেল এক বুনো হাতি। রেলের গতি নিয়ন্ত্রনের দাবী জানিয়ে সোচ্চার হয়ে ডুয়ার্সের বিভিন্ন পরিবেশ প্রেমীরা। 



উল্লেখ্য শিলিগুড়ি থেকে আলিপুরদুয়ার রেল পথে গেজ পরিবর্তনের পর এই রেল পথে ট্রেনের ধাক্কায় হাতি সহ বহু বন্য প্রাণীর মৃত্যু হয়। সংখ্যাটা শতক ছাড়িয়ে গেছে। বার বার বন্যপ্রানীর মৃত্যুর ঘটনায় সোচ্চার হয় বনকর্মী থেকে পরিবেশ প্রেমীরা। একাধিকবার রেল ও বনদপ্তরের উচ্চ পর্যায়ের মিটিংও হয়। বারবার উঠে আসে গতি নিয়ন্ত্রনের দাবী। অবশেষে দেশের সর্বোচ্চ আদালত গতি নিয়ন্ত্রনে নির্দেশিকা জারি করে। রেল ও বনদপ্তরের মধ্যে সমন্বয় গড়ে তোলার উপর জোর দেওয়া হয়। রেললাইনের আশেপাশে হাতি বা অন্য বন্য প্রাণী থাকলে বনকর্মীরা সংশ্লিষ্ট রেল স্টেশনের খবর দেবে। রেল স্টেশন থেকে সেই তথ্য অনুযায়ী রেল চালানোর ব্যবস্থা করবে। এই নির্দেশিকা মেনে চলার ফলে গত দুই বছরে ট্রেনের ধাক্কায় বন্যপ্রাণীর মৃত্যুর ঘটনা কমে এসেছিল। হাতির মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। দুইবছর হাতির মৃত্যুর ঘটনা না ঘটায় রেল কর্তৃপক্ষ আবার গতি বাড়ানোর প্রস্তাব নেয়। শোনাগেছে, সেই প্রস্তাব সর্বসন্মত ভাবে গৃহীত হওয়ার  আগেই  রেল কর্তৃপক্ষ গতি বাড়ানোর নির্দেশিকা জারি করে। এতেই রবিবার রাতে বানারহাট ও বিন্নাগুড়ির মাঝে হিন্দি কলেজের কাছে ট্রেনের ধাক্কায় হাতির মৃত্যু হয়। 




আবার সোচ্চার হয়ে উঠেছে বিভিন্ন পরিবেশ প্রেমীরা। উত্তর বঙ্গের বিশিষ্ট পরিবেশ প্রেমী ন্যাফের কো- অর্ডিনেটর অনিমেষ বসু বলেন, এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মেনে ও বন ও রেলের সমন্বয়ে বন্যপ্রাণীর মৃত্যুর ঘটনা কমে এসেছিল। এই সুযোগে সমন্বয় ব্যবস্থা ঢিলেঢালা হয়ে পড়েছিল। রেল কর্তৃপক্ষ গতি বাড়ানো র প্রস্তাব দেয়। যেসব ট্রেন ডুয়ার্স বাসীর উপকারে আসে সেই সব ট্রেন অত্যন্ত বিলম্বে চলে। আনেক সময় বাতিল হয়। পাশাপাশি থ্রু ট্রেন চালানো। মাল গাড়ি চলানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই জন্য গতি বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়। কিছু কিছু ট্রেন গতি বাড়িয়ে চলছিল। এতেই আবার এই ঘটনা ঘটেছে। এটা পরীক্ষার জায়গা নয় যে হাতির মৃত্যু কমে এসেছে তাই গতি বাড়াতে হবে। নির্দেশিকা মেনে সমন্বয় গড়ে তুলে ট্রেন চালানো উচিত। তাতেই বন্যপ্রাণীর মৃত্যু এড়ানো যাবে। 



চালসার পরিবেশ প্রেমী মানবেন্দ্র দে সরকার বলেন, কিছুদিন ধরে দেখাযাচ্ছে  ডুয়ার্সের রেলপথে ট্রেনের গতি বেড়েছে। এনিয়ে বলা সত্বেও গতি নিয়ন্ত্রনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে মনে হয়। যার জন্য এই ঘটনা ঘটেছে। 



রবিবার যেখানে ঘটনা ঘটেছে সেখানের স্থানীয় লোকজন জানায় ট্রেনের গতি যথেষ্ট বেশি ছিল। বিন্নাগুড়ি বন্যপ্রান শাখার রেঞ্জার অর্ঘদীপ রায় বলেন, এর আগে ২০১৩ সালে এইখানে ট্রেনের ধাক্কায় তিনটি হাতি মারা যায়। অভিযোগ, সম্প্রতি রেলের গতিবেগ বাড়ানোর জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে। আরও হাতি জখম হয়েছে কিনা সেটা খুঁজে দেখা হচ্ছে। 



পরিবেশ কর্মী ও বনকর্মীদের বক্তব্যকে উড়িয়ে দিয়ে রেলের আলিপুরদুয়ার ডিভিশনের সিনিয়র ডিসিএম এ,এম ঠাকুর বলেন, যেখানে ঘটনা ঘটেছে সেই এলাকায় ট্রেনের গতিবেগের সাথে হাতির মৃত্যুর সম্পর্ক নেই।  



এই রেল পথে গেজ পরিবর্তনের পর এই রেল পথে আজ পর্যন্ত প্রায় ৬০টি হাতির মৃত্যু হয়েছে। অন্যান্য প্রানীও মারা গেছে। প্রতিটি ঘটনার পর রেল ও বনদপ্তরের মধ্যে চাপানউতোর চলেছে। তারপর উচ্চ পর্যায়ের মিটিংয়ের পর কিছুদিন গতি নিয়ন্ত্রনের মধ্যে থাকে। বন্যপ্রাণীর মৃত্যু কমে যায়। তারপর শিথিলতা আসে। রেল তার গতি বাড়ায়। আবার একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে। এভাবে কত দিন চলবে?

আপনাদের মূল্যবান মতামত জানাতে কমেন্ট করুন ↴

সবার আগে খবর পেতে , পেইজে লাইক দিন

আপনার পছন্দ

বিজ্ঞাপন
PMBJK DHUPGURI

আরও খবর

বিজ্ঞাপন
Jishu da
HS01